প্রতিবেশী যুবকের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক চুকিয়ে স্বামীর কাছে ফিরতেই মারধর গৃহবধূকে

নবাব মল্লিক (দক্ষিণ ২৪ পরগণা): নিজের ভুল বুঝতে পেরে প্রতিবেশী যুবকের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক চুকিয়ে স্বামীর বাড়িতে ফিরে যাওয়ায় এক গৃহবধূকে হাত পা বেঁধে ব্যাপক মারধর করে মাথা মুড়ি দিয়ে কালি মাখানোর অভিযোগ উঠল। সোমবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে ডায়মন্ড হারবার থানার চৌশা এলাকায়। ঘটনায় বধূর অভিযুক্ত প্রেমিক দেবাশিস মন্ডল সহ বেশ কয়েকজন প্রতিবেশী। ঘটনার খবর চাউর হতেই ভিড় জমায় গ্রামবাসীরা। বধূকে হেনস্থার হাত থেকে বাঁচাতে কেউই এগিয়ে আসেনি। বাধা দিতে গিয়ে হেনস্থার মুখে পড়তে হয় বধূর স্বামীকেও। পরে সূত্র মারফৎ খবর পেয়ে ডায়মন্ড হারবার থানার আইসি গৌতম মিত্র পুলিশ বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে বধূকে উদ্ধার করে। হাতেনাতে অভিযুক্ত প্রেমিক দেবাশিস মন্ডল সহ ৭ জন প্রতিবেশীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। এদের মধ্যে তিনজন মহিলাও রয়েছেন। তাদের জেরা করে রাতে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আজ ধৃতদের ডায়মন্ড হারবার এসিজেএম আদালতে তোলা হবে। ঘটনার জেরে এলাকায় উত্তেজনা থাকায় বধূ তার বাপের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রের খবর, বছর দশেক আগে ডায়মন্ড হারবারের নুরপুরের বাসিন্দা বছর তেত্রিশের বধূর বিয়ে হয়েছিল চৌশা এলাকার কালিপদ দাসের সঙ্গে। বর্তমানে দম্পতির এক পুত্র সন্তানও রয়েছে। বিয়ের বছর দুই পর প্রতিবেশী যুবক দেবাশিস মন্ডলের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক তৈরি হয় বধূর। এমনকি বছর খানেক আগে দেবাশিসের হাত ধরে বাড়ি ছাড়েন বধূ। কিন্তু নিজের ভুল বুঝতে পেরে মহিলা মাসখানেক আগে আবার স্বামীর বাড়িতে ফিরে আসেন। যা কোনরকম সহ্য করতে পারেনি প্রেমিক দেবাশিস মন্ডল। অভিযোগ, রবিবার রাতে ভুল বুঝিয়ে বধূকে ফের নিজের বাড়িতে নিয়ে যায় দেবাশিস। অভিযোগ, এদিন সকাল হতেই বধূর হাত-পা বেঁধে আটকে রাখা হয়। বিষয়টি জানাজানি হতেই চলে আসেন প্রতিবেশীরা। বধূর অভিযুক্ত প্রেমিক দেবাশিস সহ পাঁচ জন প্রতিবেশী মিলে বধূর মাথা ন্যাড়া করে দেয়। তাতেই ক্ষান্ত হয়নি। প্রকাশ্যে মারধরের পাশাপাশি মাথায় চুন লেপে দিয়ে মুখে কালি লাগিয়ে দেওয়া হয়। এভাবে প্রায় দু’ঘণ্টার বেশি সময় ধরে বধূর উপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার চালানো হয় বলে অভিযোগ।

সাতসকাল ফিচার
সাতসকাল ই-পেপার
সাতসকাল নিউজ
error: Content is protected !!