যৌনতা নিয়ে সঙ্গীর সঙ্গে মেতে উঠুন নিত্য নতুন পরীক্ষায়

পশ্চিমের দেশগুলিতে সেক্স শব্দটির জনপ্রিয়তা তুঙ্গে। এটি বিদেশের মানুষদের কাছে একটি সাধারণ চাহিদা।  সেক্স বিষয়টিকে সহজভাবে উপভোগ করেন তাঁরা। আমাদের পূর্বপুরুষরাই যৌনতাকে শিল্পের মর্যাদা দিয়েছিলেন। সেই প্রাচীন যুগের মানুষগুলো কিন্তু যৌনতা নিয়ে এতটা খুঁতখুঁতে বা ভয়ভীত ছিলেন না। বরং যৌনতা নিয়ে সঙ্গীর সঙ্গে নতুন নতুন পরীক্ষায় সচেষ্ট হতেন। তখন যৌনতাকে বলা হত যৌনকলা। অর্থাৎ শিল্প।

তাই সেক্স বিষয়টিকে উপভোগ করার জন্য কয়েকটি ভালো সূত্রের সন্ধান দিয়েছেন চিকিৎসকরা। বাড়িতে ছোটো সোফা বা কাউচ কমবেশি সকলেরই থাকে। যৌনতার জন্য এই ইউনিক জায়গাটিকেই বেছে নিন। বিছানার বদলে সোফায় বিভিন্ন ধরনের সেক্স পোজিশন ট্রাই করলে মানসিকভাবে অনেক শান্তি মেলে। বলছে বিশেষজ্ঞরা। অভিজ্ঞতা না থাকলে ইন্টারনেটের নানা সাইটে পড়াশোনা করে নিতে পারেন। আর যদি বাড়িতে একটি কামসূত্র বই থাকে তাহলে তো কেল্লা ফতে। দার্শনিক বাৎস্যায়ন স্বয়ং আপনাদের পথ দেখিয়ে দেবেন। বাথরুমের শাওয়ার খুলে দিন। হালকা একটা ইনস্ট্রুমেন্টাল মিউজিক চালান। সঙ্গীকে নিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ুন শাাওয়ারের নীচে। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে আদর করুন। বাথটাব থাকলে তো কথাই নেই। তবে এক্ষেত্রে সঙ্গে একটু ওয়াইনের দরকার পড়ে। না হলে মুডটা ঠিক জমে না। হালকা মিউজিকের সঙ্গে রেড ওয়াইন, জলের ভেজা দুটো শরীরের বারবার এক হয়ে যাওয়া। ঠিক যেন স্বপ্নের মতো। তবে শাওয়ারের নীচে দাঁড়ালে বেশি হুড়োহুড়ি করবেন না। স্লিপ খাওয়ার প্রবল সম্ভাবনা থাকে। আর বয়স বেশি হলে তো আরও বিপদ। তাই আদর করুন কিংবা আদর খান সাবধানে।

বাড়িতে বড় আয়না থাকলে তাঁর সামনেও মিলিত হতে পারেন। বিশেষজ্ঞরা বলেন নিজেদের মিলনের দৃশ্য মানসিকভাবে দারুণ শান্তি দেয়। উত্তেজনা বাড়ায়। কামনাকে চরম পর্যায়ে নিয়ে যায়। আর যৌন মিলনের জন্য বাড়ির মধ্যে সবচেয়ে সৃজনশীল জায়গাও নাকি এই আয়না। তাছাড়া বিশেষজ্ঞদের কথা ধরেই বলি যে, আমরা নিজেরা কিন্তু নিজেদের আয়নায় দেখতে বরাবরই ভালোবাসী। তাই নিজেদের সুন্দর এবং বিশেষ মুহূর্তগুলিও যদি চোখের সামনে ভেসে ওঠে তাহলে উত্তেজনা বাড়ে।

সাতসকাল ফিচার
সাতসকাল ই-পেপার
সাতসকাল নিউজ
error: Content is protected !!